মডার্ন অফিস ইন্টেরিয়র ডিজাইনের পাঁচ ট্রেন্ড

৫. খোলামেলা পরিবেশ

Office interior openness

Photography by Naunce_09

এখনকার অফিস আর আগের মতো নেই। ঘুপচি ঘুপচি রুমের মধ্যে ঘুপচি ঘুপচি কিউবিকল, আর রুমের চারপাশে ফাইলপত্র স্তুপ করে রাখা। ওসবের দিন ফুরিয়ে গেছে অনেক আগে। এখনকার মডার্ন অফিসে ঢুকলেই একটা শান্তি শান্তি ভাব থাকে। যার প্রথম কারণ খোলামেলা পরিবেশ। রিসিপশন থেকে শুরু করে সিইও’র রুম, পুরোটা অফিস যদি একটু খোলামেলা না থাকে তাহলে অফিসের ভেতরে প্রশান্তিটা থাকে না, প্রাণচঞ্চলতা হারিয়ে যায়। মিশরের এই গবেষণায় দেখুন, ওরা স্পষ্ট বলে দিচ্ছে আপনার অফিস কতটুকু খোলামেলা তার উপর নির্ভর করছে আপনার এবং আপনার সহকর্মিদের প্রোডাক্টিভিটি এবং মানসিক স্বাস্থ্য।

খোলামেলা পরিবেশের উপর নির্ভর করছে কাজ করার অপটিমাম আলো পাচ্ছেন কিনা। সেইসাথে বাতাস চলাচল, আর্দ্রতা নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হবে যখন পরিবেশ আবদ্ধ না হবে। এখানে ম্যাক্সিমাম যে প্রশ্ন আগে চলে আসে তা হলো, আমার অফিস তো ছোট, খোলামেলা রাখবো কি করে? আপনার অফিস যদি খোলামেলা রাখতে চান তাহলে অফিসের আকার ফুটবল মাঠের সমান হওয়ার দরকার নেই। অফিসের স্পেইসের উপর নির্ভর করে আপনাকে ফার্নিচার, জানালা এবং পুরো ইন্টেরিয়র ডিজাইন সিলেক্ট করতে হবে। এ বিষয়ে এক্সপার্টের সাথে কনসাল্টেন্সির জন্য যোগাযোগ করুন এখানে

 

৪. অফিসে কাজের ফ্লেক্সিবিলিটি

Google office interior shows flexibility of the workers

Photography by Attila Balázs

মডার্ন অফিসের আরেকটি বৈশিষ্ট হলো ফ্লেক্সিবিলিটি। সবাইকে এক সাইজের কিউবিকল, এক শেপের ড্রেস কিংবা একই রকম ব্রিফকেস হাতে নিয়ে অফিসে যাবার ধরণ আর নেই। এখন যেহেতু প্রায় সবাইকে কম্পিউটারে কাজ করতে হয়, কম্পিউটার বা ল্যাপটপ ব্যবহারের উপযোগী যায়গা থাকলেই হলো। আপনার অফিসে যদি ব্রেইনস্টোর্মিং করতে হয়, যদি নতুন আইডিয়া উদ্ভাবনের কাজ করতে হয়, তবে আপনার কাজে ফ্লেক্সিবিলিটি থাকতে হবে। রিল্যাক্সড্ মুডে কাজ করার সুযোগ থাকতে হবে। সবার সাথে কোলাবোরেট করার সুব্যবস্থা দরকার হবে।

উপরে গুগলের অফিসটি দেখুন। ওদের অফিসের ইন্টেরিয়র যেন-তেনভাবে হয় না, সায়েন্টিফিক উপায়ে ম্যাক্সিমাম প্রোডাক্টিভিটি বের করে আনার উপযোগী করে ডিজাইন করা হয়। আপনার অফিস যদি টেকনোলজি নির্ভর হয়, কিংবা কাজগুলো যদি ল্যাপটপ নির্ভর হয়, তবে গুগল বা অন্যান্য টেকনোলজি কম্পানিগুলোর অফিস ফলো করতে পারেন, অফিস ইন্টেরিয়র সম্পর্কে একটা ভালো ধারণা পেয়ে যাবেন।

 

৩. অফিস ইন্টেরিয়র নিজেই একটা ব্রান্ডিং

Your office interior express your branding

source: https://goo.gl/gsRxhi

 

ব্রান্ডিংয়ের এই যুগে সবকিছুতেই আমরা নিজের ব্রান্ডিং করতে চাই। কিন্তু সত্যি করে বলুন তো, আপনার অফিসের ভেতরের পরিবেশ কি আপনার ব্রান্ডকে রিপ্রেজেন্ট করছে? সাকসেসফুল ব্রান্ডগুলোর ইন্টেরিয়র দেখুন, দেয়াল থেকে শুরু করে টেবিল চেয়ার, সব যায়গায় তাদের লোগো, ব্রান্ড কালার এবং কালচারের প্রকাশ দেখতে পাবেন। আপনার ব্রান্ডকে সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে হলে আগে আপনার নিজের মধ্যে এবং আপনার সহকর্মীদের মধ্যে ছড়াতে হবে। যখন নিজেদের মধ্যে ব্রান্ডের সাথে একাত্মতা থাকবে, তখনই সম্ভব অন্যের কাছে ব্রান্ডকে প্রচার করা।

 

২. প্রকৃতির সাথে একাত্মতা

Office interior indoor plant

অফিসের মধ্যে প্রকৃতিকে নিয়ে আসা আধুনিক অফিসের একটা নতুন সংযোজন। কে বলেছে অফিস হতে হবে একটা কংক্রিটের জঙ্গল? ধীরে ধীরে সবাই আজকাল অফিসের পরিবেশ মনরোম করার সর্বাত্মক চেষ্টায় রত। সবুজ প্রকৃতির মাঝখানে যেহেতু অফিসের লোকেশন ঠিক করা আমাদের ঢাকায় প্রায় পুরোপুরি অসম্ভব, তাই যতদূর সম্ভব প্রকৃতিকে অফিসের ভেতরেই নিয়ে আসুন।

সবচেয়ে কম খরচে অফিসের ইন্টেরিয়র এনভায়ারনমেন্টে যদি আমূল পরিবর্তন আনতে চান তবে এই পয়েন্টটি আপনার জন্য। এখন অনেক অনেক গাছ, ফার্ন, বনসাই এভেইলএবল যা অফিসের এন্ট্রি থেকে শুরু করে টেবিলটপ, সব যায়গার জন্য যুতসই। অফিস ইন্টেরিয়রে গাছের ব্যবহার অফিসকে দৃষ্টিনন্দন করার পাশাপাশি আপনার এমপ্লয়িদের মনকে প্রফুল্ল রাখবে।

 

১. কাজের সাথে বিনোদন

Steve Vinter and Deval Patrick play ping pong.jpg
By SageChimeraOwn work, CC BY-SA 3.0, Link

অফিসে শুধু কাজ কাজ আর কাজ হবে, আর কিছুই হবে না, এই ধারণা থেকে ধীরে ধীরে সবাই বাইরে চলে আসছে। যদিও এই প্রথার বাইরে আসা ব্যাপকভাবে শুরু হয়েছে সিলিকন ভ্যালি থেকে, কিন্তু ইদানিং টেকনোলজি কোম্পানি ছাড়া অন্যান্য প্রতিষ্ঠানও অফিসে কাজের সাথে বিনোদনের ব্যবস্থা রাখছে। এই বিষয়টা পুরোপুরি বিজ্ঞানসম্মত। মানুষের মস্তিষ্ক একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর মনযোগ ধরে রাখার ক্ষমতা হারাতে থাকে। যদিও মানুষভেদে সেই সময় বিভিন্ন হতে পারে, কিন্তু একটানা সারা সকাল বা পুরো দুপুর কোন মানুষের পক্ষেই পরিপূর্ন মনযোগ ধরে রাখা সম্ভব না।

তাই অফিসে ছোট একটা জিম কিংবা টেবিল টেনিসের একটা কর্নার রাখতে পারেন। এতে করে ফিজিক্যাল অ্যাক্টিভিটির কারণে এমপ্লয়িদের প্রোডাক্টিভিটি যেমন বাড়বে, তেমনি বৃদ্ধি পাবে মনযোগ দিয়ে কাজ করার ক্ষমতা। আর সেই সাথে আপনার অফিস হবে চাকুরিপ্রার্থীদের জন্য এক আকাঙ্খার যায়গা।

In-art Studio

Earn Your Inner Peace

By | 2018-04-25T08:41:19+00:00 April 24th, 2018|Interior design, Office Interior Design|2 Comments

2 Comments

  1. Sagar April 25, 2018 at 6:38 am - Reply

    Thanks, guide us like that

  2. omar April 27, 2018 at 2:29 am - Reply

    You are welcome Mr Sagar,
    Help us provide better information with constructive criticism.

Leave A Comment